অ্যাপসটি সবাই কেন ব্যবহার করতে চায়। কারণ হচ্ছে এতে রয়েছে সকল ধরনের সবিতা। জিটিভি লাইভ খেলা, রেডিও ,টিভি, নিউজ পেপার ,পুলিশের নাম্বার ,লাইভ ক্রিকেট খেলার ,cricket scores ,football scores , অডিও কোরআন শরীফ শুনতে ও পড়তে পারবেন , আরো রয়েছে আপনার সন্তানের পরীক্ষার রেজাল্ট বাহির করতে পারবেন ,ইত্যাদি সকল বিষয়। এবং আরো রয়েছে অনেক ধরনের সুবিধা যেমন আপনি যেখানে ১২ থেকে ১৫ টা সফটওয়্যার ইনস্টল করতে হবে । সেখানে আপনি মাত্র চার এমবি একটা সফটওয়্যার ইন্সটল করে সব কাজ করতে পারেন। কোন জামেলা ছাড়াই । এবং ফ্রিতে ইন্সটল করতে পারেন কোন play store সমস্যা পড়তে হবে না । ডাউনলোড লিংক দেওয়া হল ভালো লাগলে ডাউনলোড করে ব্যবহার করবেন ধন্যবাদ সবাইকে

স্কুলে ছড়াচ্ছে মাদক মেশানো ক্যান্ডি, সতর্কতা জারি

স্কুলের শিক্ষার্থীদের মাঝে মাদক মেশানো হরেক রকমের ক্যান্ডি বিলি করা হচ্ছে। স্ট্রবেরি, অরেঞ্জ, চেরি, আঙুরসহ বিভিন্ন স্বাদে মিলছে এসব ক্যান্ডি।

এসব ক্যান্ডি খাওয়ার পর শিক্ষার্থীদের ঘুম বেড়ে যাচ্ছে। হাসপাতালেও ভর্তি করা হচ্ছে তাদের। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতাসহ রাজ্যের একাধিক স্কুলে ঘটছে এসব ঘটনা।

পুলিশ সূত্রে খবর, রাজ্যের বিভিন্ন স্কুলে একটি দুষ্টচক্র ছড়িয়ে দিচ্ছে মাদকের মারণ বীজ। ‘স্ট্রবেরি কুইক’ নামের ক্যান্ডির মাধ্যমে স্কুলের শিক্ষার্থীদের আসক্ত করে তোলা হচ্ছে মাদক সেবনে।  

জানা গেছে, স্ট্রবেরির স্বাদযুক্ত ওই ক্যান্ডিগুলি কলকাতাসহ রাজ্যের একাধিক স্কুলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে অবাধে বিলি করা হচ্ছে। এমনকি বেশ কয়েকটি নতুন স্বাদের ওই ক্যান্ডিও বাজারে ছড়িয়েছে। সূত্রের খবর, মাদক মেশানো ওই ক্যান্ডি খেয়ে ইতিমধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়েছে বেশ কয়েকজন পড়ুয়া। কয়েকজনকে হাসপাতালেও ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশের ‘নার্কোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো’র গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, স্ট্রবেরি ছাড়াও অরেঞ্জ, চেরি, আঙুর বাটারসহ বিভিন্ন স্বাদে মিলছে মাদক মেশানো ক্যান্ডি। ওই ক্যান্ডি খাওয়ার পর একাধিক শিক্ষার্থীকে অস্বাভাবিকভাবে ঘুমোতে দেখা যায়। অনেকেই বমি করতে শুরু করে।  

জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের নেশায় জালে জড়িয়ে ফেলতে ক্যান্ডিগুলিতে আফিম মেশানো হয়। এছাড়াও অন্য কোনও ড্রাগও মেশানো হতে পারে বলে মনে করছেন গোয়েন্দারা।

শুধু পশ্চিমবঙ্গে নয়, সম্প্রতি মাদক মেশানো ক্যান্ডির খোঁজ মিলেছে মুম্বাই ও বেঙ্গালুরুর একাধিক স্কুলে। ফলে এই চক্রান্তের নেপথ্যে একটি আন্তর্জাতিক মাদক পাচার চক্র রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। এই বিষয়ে স্কুলগুলিতে সতর্কবার্তা জারি করেছে পুলিশ ও প্রশাসন। স্কুল চত্বরে এমন কোনও সন্দেহজনক বস্তু দেখলে সঙ্গে-সঙ্গে পুলিশে জানানোর নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও অভিভাবকদেরও সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

- ইন্টারনেট থেকে

No comments:

Post a Comment

অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetv24@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫