অ্যাপসটি সবাই কেন ব্যবহার করতে চায়। কারণ হচ্ছে এতে রয়েছে সকল ধরনের সবিতা। জিটিভি লাইভ খেলা, রেডিও ,টিভি, নিউজ পেপার ,পুলিশের নাম্বার ,লাইভ ক্রিকেট খেলার ,cricket scores ,football scores , অডিও কোরআন শরীফ শুনতে ও পড়তে পারবেন , আরো রয়েছে আপনার সন্তানের পরীক্ষার রেজাল্ট বাহির করতে পারবেন ,ইত্যাদি সকল বিষয়। এবং আরো রয়েছে অনেক ধরনের সুবিধা যেমন আপনি যেখানে ১২ থেকে ১৫ টা সফটওয়্যার ইনস্টল করতে হবে । সেখানে আপনি মাত্র চার এমবি একটা সফটওয়্যার ইন্সটল করে সব কাজ করতে পারেন। কোন জামেলা ছাড়াই । এবং ফ্রিতে ইন্সটল করতে পারেন কোন play store সমস্যা পড়তে হবে না । ডাউনলোড লিংক দেওয়া হল ভালো লাগলে ডাউনলোড করে ব্যবহার করবেন ধন্যবাদ সবাইকে

আপনি কখনও শুনছেন হলিউড বলিউডের কোনো নায়িকার সিজার করে বাচ্চা হয়েছে ?

সিজার ডেলিভারি প্রসঙ্গ
--  -- -  -- -- --  --  ---  -- --
আপনি কখনও শুনছেন হলিউড বলিউডের কোনো নায়িকার সিজার করে বাচ্চা হয়েছে ?

আত্মীয় বন্ধু যারা ইউরোপ আমেরিকায় বউ নিয়া থাকেন তাদের স্ত্রীদেরও সিজারে বাচ্চা হয়েছে শুনিনি। তাদের বাচ্চা ডেলিভারীর আগে গাইনি ডাক্তার আত্মা শুকানো ভয় দেখিয়ে বলেননি
পানি শুকিয়ে গেছে!
নুচাল কর্ড (নার) প্যাঁচিয়ে গেছে!
পজিশন উল্টে গেছে!

বিশ্বের কোথাও দাঁড় করানো অজুহাতে সিজার করা হয় না।
.
শুধু বাংলাদেশে বাচ্চা জন্ম দিতে গেলে গাইনি ডাক্তাররা হাজারও অজুহাত দেখান! আপনাকে এমনসব ভয় দেখাবেন যে, অনাগত বাচ্চার সামনেই কাল্পনিক কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে দেবে! বলবে এই মুহুর্তে সিজার না করলে বাচ্চা বাঁচানো যাবেনা। দায় দায়িত্ব আপনার! এছাড়াও ডেলিভারি পেইন নিয়া ক্লিনিকে যাবেন তো ব্যথা কমার ইঞ্জেকশন দেবে। ব্যাথা শেষ! এবার এই অজুহাতে সিজার!
.
এখন ত অনেক গাইনি ডাক্তার ডাইরেক্ট বলে দেন, 'আমি নরমাল ডেলিভারি করাই না!'

এত সিজার ডেলিভারি বিশ্বের আর কোনো দেশে হয় না। 
অনেক মায়েরাও কম যান না! আগেই সিদ্ধান্ত নেন সিজারে বাচ্চা নিবে। একটুও কষ্ট সহ্য করবে না! এটা আরেক ফ্যাশন!

আজব এই দেশ! জন্ম নিয়ন্ত্রণ, শিক্ষার হার, বৃক্ষ রোপন, টিকা দান, শিশুমৃত্যু হার রোধ এসব কিছুতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সবুজ মার্ক পেলেও সিজার ডেলিভারিতে লাল দাগ । অনেক বছর ধরে।
সরকারও কিন্তু কিছু বলছে না!
.
এক বন্ধুর কাছে শুনলাম আমেরিকাতে নাকি বাইশ ঘন্টা ডেলিভারি পেইনের পরেও ডাক্তার সিজার করেননি। সুস্থ বাচ্চা হয়েছে, মাও সুস্থ।
.
আমার পরিচিত এক গাইনি ডাক্তার (MBBS, DGO) পঁচানব্বই ভাগ নরমাল ডেলিভারি করাতেন বিধায় কোনো ক্লিনিক তাকে নিতে চায় না।
এই ডাক্তার এই ক্লিনিক ওই ক্লিনিক, এই জেলা ওই জেলা করে শেষে ঢাকার মিরপুরের এক অখ্যাত ক্লিনিকে থিতু হয়েছেন। আমার কলিগের কন্যার ডেলিভারি কিন্তু এই ডাক্তারের হাতেই হয়েছে।  নরমাল। 
.এবার আরেকটা সত্য ঘটনা, তাও ফেনীবাসি ডাক্তার বন্ধুর কাছে শোনা, বলি,

ফেনীতে এক গর্ভবতী মহিলা প্রসব বেদনা নিয়ে ক্লিনিকে ভর্তি হয়েছেন। নার্সরা সাথে সাথে ওটিতে নিয়ে গেছে এবং গাইনি ডাক্তারকে ফোন দিয়েছে। ডাক্তার ফোনে কয়েকটা ইঞ্জেকশন দিতে নির্দেশনা দিয়ে জাস্ট দশ মিনিটের মধ্যে এসে সিজার করবেন বলে ফোন রেখে দেন। নার্স নীচে যায় ইঞ্জেকশনের জন্য, ডাক্তারও দশ মিনিটের মধ্যে পৌঁছে দেখেন নার্স ইঞ্জেকশন পুশ করার আগেই বাচ্চা নরমাল ডেলিভারি হয়ে গেছে! ডাক্তারের মেজাজ মারাত্মকরকম খারাপ হয়ে গেল,
'এই বাচ্চা হলো কিভাবে ? নার্সেরা কী করছিলো! দশটা মিনিট স্টপ করাতে পারেনি !

অনেক মায়েরা ফিগার নষ্ট হয়ে যাবার ভয় করেন।
বাচ্চাকে ব্রেস্ট ফিডিং করাতে চান না।
আপনি বিবাহিত মহিলা। আপনার স্বামী আছে, সন্তান আছে, ফিগার দিয়ে কি করবেন?
বাচ্চার ব্রেইন, ইমিউনিটি বেশি ইমপরট্যান্ট নাকি আপনার ফিগার?
তারপরেও বলি, বেবি বড় হওয়ার সাথে সাথে ফিগারও আগের অবস্থানে ফিরতে শুরু করে..

সরি বোন, নিজের না, বেবির ফিউচারের দিকে বেশি কেয়ার নিন....

এখনো ভাল ডাক্তার আছে যারা আপনার ভালটাই চাইবে...
কমার্শিয়াল ডাক্তারদের 'গুড বাই' বলুন, এখন থেকেই ন্যাচারাল ডেলিভারির মেন্টাল প্রিপারেশন নিন...
সুস্থ্য থাকুন... ভাল থাকুন.....

- সংগৃহীত এবং পূনর্লিখিত ।

No comments:

Post a Comment

অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetv24@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫