অ্যাপসটি সবাই কেন ব্যবহার করতে চায়। কারণ হচ্ছে এতে রয়েছে সকল ধরনের সবিতা। জিটিভি লাইভ খেলা, রেডিও ,টিভি, নিউজ পেপার ,পুলিশের নাম্বার ,লাইভ ক্রিকেট খেলার ,cricket scores ,football scores , অডিও কোরআন শরীফ শুনতে ও পড়তে পারবেন , আরো রয়েছে আপনার সন্তানের পরীক্ষার রেজাল্ট বাহির করতে পারবেন ,ইত্যাদি সকল বিষয়। এবং আরো রয়েছে অনেক ধরনের সুবিধা যেমন আপনি যেখানে ১২ থেকে ১৫ টা সফটওয়্যার ইনস্টল করতে হবে । সেখানে আপনি মাত্র চার এমবি একটা সফটওয়্যার ইন্সটল করে সব কাজ করতে পারেন। কোন জামেলা ছাড়াই । এবং ফ্রিতে ইন্সটল করতে পারেন কোন play store সমস্যা পড়তে হবে না । ডাউনলোড লিংক দেওয়া হল ভালো লাগলে ডাউনলোড করে ব্যবহার করবেন ধন্যবাদ সবাইকে

হালুয়াঘাটে এবার দাদা’র লালসার শিকার নাতনী


হালুয়াঘাটে এবার দাদা’র লালসার শিকার হলেন সুরাইয়া আক্তার( ছদ্ধনাম) নামে ১০ বছরের নাতনী। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ইসলামপুর বটতলা বাজারের উত্তর পাশে রিক্সাচালক সুবেদ আলী (৫০) এর বাড়িতে। রিক্সাচালক সুবেদ আলী ক্রমাগত যৌন লালসায় স্বীকার হয়ে শেষ পর্যন্ত মুখ খুলতে বাধ্য হয়েছেন তারই ছেলের ঘরের নাতনী। শুক্রবার ঐ কিশোরির সাথে কথা বললে দাদার যৌন নির্যাতনের কথা ক্যামেরার সামনে অকপটে স্বীকার করে। পাশাপাশি দাদার যৌন লালসার ক্ষত চিহ্নগুলোও দেখান নির্যাতিতা কিশোরি। সরেজমিনে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে জানা যায়, সুরাইয়া দাদার কাছে থাকতেন। মা থেকেও নেই। বাবা ঢাকায় কাজ করেন। রিক্সাচালক সুবেদ আলীর বাড়িতে নাতনী সুরাইয়া দাদার রান্নার কাজ করে দিতেন। আর সেই রক্ষক দাদাই ভক্ষণ করার চেষ্টা করেছেন সুরাইয়াকে। সুরাইয়া বলেন, প্রতি রাতেই ঘুমের ঘরে দাদার যৌন লালসার শিকার হতো। শেষ পর্যন্ত কিশোরি সহ্য করতে না পেরে মুখ খুলতে বাধ্য হন। শিশুটি জানান, যখন তার মুখে দাদার কামড়ে ক্ষত হয়ে যায় তখন বিষয়টি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে নতুন নাটক সাজায়। এর সাথে এলাকার কতিপয় লোক তাদের ব্যাক্তি স্বার্থ হাসিলের জন্যেও নাটকের পক্ষে ভূমিকা নেয়। সুবেদ আলী তার নাতনীকে অন্য কারও নাম বলার জন্যে ফন্দি আটতে থাকে। তওবা করতে বলে সুরাইয়াকে। কোরআন শরীফের দোহাই দিয়েও ধামাচাপা দিবার চেষ্টা চালায় সুবেদ আলী। কিন্তু নাতনী সুরাইয়া সাধারন মানুষের কাছে মুখ না খুললেও সাংবাদিকদের কাছে পেয়ে দাদার সকল কুকর্মের কথা ফাঁস করে দেন। অবুঝ কিশোরি ধর্ষণ কি জিনিস না বুঝলেও ধর্ষণের ঘটনার আলামত কিশোরির মুখ নিঃসৃত কথা থেকে বুঝা যায়। পরে রিক্সাচালক সুবেদ আলীকে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করে বলেন, মেয়েটির গালে লিজা নামে অপর আরেক মেয়ে কামড়িয়ে ক্ষত করেছে। এ বিষয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান কামরুল হাসান বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। তবে দাদা সত্যিই এ কাজ করেছেন কিনা তা তিনি তদন্ত করে দেখবেন। হালুয়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( তদন্ত) মোঃ লাল মিয়া বলেন, অভিযোগ পেলে অবশ্যই আইনগত ব্যাবস্থা তিনি গ্রহণ করবেন। এছাড়া সরেজমিনে ঘটনাটি তদন্ত করবেন বলে জানান।

সংগ্রহ : সাংবাদিক fb/ Abdul Hoque Liton

No comments:

Post a Comment

অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetv24@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫