[X]

বাবাকে মারছ কেন বলে চিৎকার, অতঃপর বালিশ চাপা দিয়ে মেয়েকেও হত্যা মা ডাইনি

এরকম ঘটনা বাংলাদেশের সর্বপ্রথম ঘটল
বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের জের ধরে রাজধানীর বাড্ডায় খুন করা হয় গাড়িচালক জামিল শেখকে। আর সেটা দেখে ফেলায় নয় বছরের মেয়েটিকেও শ্বাসরোধে হত্যা করেন মা এবং তার প্রেমিক শাহিন মল্লিক। পুলিশের হাতে ধরা পড়ার পর রাজধানীর বাড্ডায় আলোচিত বাবা-মেয়ে খুনের ঘটনায় এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য জানিয়েছেন তারা। শনিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া কেন্দ্রে এক সংবাদ সম্মেলনে গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মোশতাক আহমেদ এ তথ্য জানান। পুলিশ জানায়, বাড্ডার হোসেন মার্কেটের ময়নারটেক এলাকার গোরস্থান রোডের ৩০৬ নম্বর বাড়ির তৃতীয় তলায় থাকতেন প্রাইভেট কার চালক জামিল শেখ। গাড়িচালক জামিল শেখ ও তাঁর তৃতীয় শ্রেণিপড়ুয়া মেয়ে নুসরাত আক্তার খুন হয় বুধবার রাতে। বৃহস্পতিবার সকালে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। তখন নিহতের বাসার সাবলেট ভাড়াটিয়া শাহীন ও তাঁর স্ত্রী মাসুমা পলাতক ছিলেন। ঘটনার পরপরই পুলিশ জামিল শেখের স্ত্রী আর্জিনাকে গ্রেপ্তার করে। জামিলের ভাই শামীম শেখ বৃহস্পতিবার শাহীন মল্লিক ও আর্জিনাকে আসামি করে বাড্ডা থানায় মামলা করেন। আর্জিনার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাতেই বাড্ডা থানা-পুলিশের পাঁচ সদস্যের একটি দল খুলনা থেকে আটক করা হয় শাহিনকে। পরে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের আর্জিনা ও শাহিন জানায়, তাদের মধ্যকার পরকীয়ার অনৈতিক সম্পর্কের কথা জেনে যাওয়ার কারণে জামিলকে হত্যার সিদ্ধান্ত নেয় তারা। পুলিশ জানায়, আসামিরা পরিকল্পিতভাবে জামিলকে হত্যা করে। এ সময় তাদের মেয়ে নুসরাত দেখে ফেলায় তাকেও হত্যা করেন শাহীন। তাকে হত্যার বিষয়ে মা আরজিনা বেগম সম্মতি দিয়েছিলেন। কারণ সম্পর্কের এক পর্যায়ে জামিলকে তালাক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন আরজিনা। তখন শাহীন তাকে তালাক না দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে হত্যার পরিকল্পনার কথা জানান। ডিসি মোশতাক আহমেদ বলেন, ‘বাবাকে হত্যার সময় মেয়ে নুসরাত জেগে যায়। সে শাহীনকে প্রশ্ন করে, বাবাকে কেন মারছ এবং চিৎকার করে কান্নাকাটি করতে থাকে। তখন নুসরাতকে হত্যার পরিকল্পনা করেন শাহীন। তবে আরজিনা প্রথমে এতে সম্মতি না দিলেও পরে বিপদে পড়ার আশঙ্কায় মেয়েকে হত্যার পরিকল্পনায় রাজি হন।’ তিনি বলেন, ‘তখন নুসরাতকে ঘরের বিছানায় ফেলে গলা টিপে হত্যার চেষ্টা করেন শাহীন। তবে নুসরাত চিৎকার করায় তার মুখে বালিশ চাপা দিয়ে মেরে ফেলা হয়।’ ডিসি মোস্তাক আহমেদ বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের পর ছাদে বসে শাহীন ও আরজিনা গল্প সাজাতে থাকেন। এক পর্যায়ে তারা সিদ্ধান্ত নেন, কেউ জিজ্ঞেস করলে ডাকাতরা জামিল ও তার মেয়েকে হত্যা করেছে বলে বলবে। এছাড়া ডাকাতেরা যাওয়ার সময় তাকে ধর্ষণ করেছে বলে দাবি করবে আরজিনা।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetv24@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫