[X]

শশুর-শাশুড়ী কর্তৃক যৌতুকের বলি হলেন গৃহবধূ

সাতক্ষীরা কালিগঞ্জের পাইকারা রহিমপুরে যৌতুকের দাবি পূরণ করতে না পারায় শশুর শাশুড়ি কর্তৃক পেট্রোলের আগুনে অগ্নিদগ্ধ হলেন গৃহবধূ লিমা পারভিন(১৯)।

জানা যায়,  গৃহবধূ লিমা পারভিনের শশুর মোঃ আকবর হোসেন ও শাশুড়ি জাহানারা বেগম দীর্ঘদিন ধরে লিমা পারভিনের কাছে ও তার বাবার বাড়িতে বিভিন্ন ভাবে যৌতুকের দাবি করে আসছে।

ভুক্তভোগীর পরিবারের সাথে কথা বলে  জানা যায়, তারা তার মেয়ের শশুর শাশুড়ি এ পর্যন্ত অন্যায় অনেক প্রকার যৌতুক দাবি করে। মেয়ের পরিবার তাদের মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে অনেক কষ্টের মাঝে থেকেও তার মেয়ের শশুর শাশুড়ির অবাঞ্চিত দাবী দাওয়া পূরণ করে।

কিন্তু ঘাতক শশুর-শাশুড়ির চাওয়া পাওয়ার কোনো অন্তি নেই। পরবর্তীতে তারা আরো টাকা পয়সা ও মটরসাইকেল দাবী করে। কিন্তু মেয়ের পরিবার তাদের অভাবের কারণে ঐ দাবি পূরণে ব্যার্থ হয়। আর পরবর্তীততে মেয়ের বাবা-মায়ের ব্যার্থতার বলি হলেন তাদের কন্যা লিমা পারভিন।

জানা যায় লিমা পারভিনের স্বামী আকরাম হোসেন বেশিরভাগ সময় তার কাজে বাইরে থাকেন,  আর যখন বাড়ি ফেরে তখন লিমা তার স্বামীকে এইসব অন্যায় আবদারের কথাগুলো জানান,  কিন্তু তার স্বামী আকরাম হোসেন লিমার কোনো কথায় কর্ণপাত করেনা এবং আকরাম তার বাবা-মায়ের নিকটে এবিষয়ে কোন কিছু জানতেও চায় না।

এভাবে চলতে চলতে এক পর্যায়ে আকরাম তার কাজের উদ্যেশে বাড়ির বাইরে গেলে আকরামের বাবা-মা অর্থাৎ লিমার শশুর-শাশুড়ি লিমার সংগে ঐ যৌতুকের বিষয় নিয়ে কথা তোলে এবং  দুই এক কথায় লিমার প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে পরিকল্পিতভাবে তার শরীরে পেট্রোল ঢেলে দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয় ও কাউকে কিছু না জানিয়ে শশুর আকবর হোসেন ও শাশুড়ি জাহানারা বেগম ঘরের বাইরে চলে যায়।

এদিকে লিমার চিৎকারে ঘটনাটি এলাকাবাসী টের পেয়ে গৃহবধূ লিমাকে অগ্নিদগ্ধা অবস্থায় উদ্ধার করে এবং তার স্বামী ও লিমার বাবা মাকে খবর দেয়।  তার পর এম্বুলেন্সযোগে চিকিৎসার জন্য তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ বিষয়ে থানা অবগত আছে কিন্তু এখনো পর্যন্ত কোনো মামলা করা হয়নি বলে জানান আহতের পরিবার।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetv24@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫