[X]
loading...

প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিল থেকে ঘর বরাদ্ধ দেওয়ার নামে রামগঞ্জে অর্ধকোটি টাকা আদায়


প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিল থেকে ঘর বরাদ্ধ দেওয়ার নামে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রায় ৫শতাধিক অসহায় ও হতদরিদ্রদের কাছ থেকে ১০/২০ হাজার টাকা করে অর্ধকোটি টাকা আদায় করেন স্থানীয় এমপি’র ব্যাক্তিগত সহকারী ফরিদ আহম্মদ বাঙ্গালী। ধার দেনা করে বিভিন্ন এনজিও থেকে কিস্তিতে টাকা নিয়ে দেওয়ার পর থেকে ঘর পাওয়া না পাওয়া নিয়ে হতাশা বিরাজ করছে ওই সমস্ত অসহায় মানুষের মাঝে।
সূত্রে জানা যায়, লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন স্থায়ী কমিটির সদস্য লায়ন এম এ আওয়ালের ব্যক্তিগত সহকারী ফরিদ আহম্মদ বাঙ্গলী প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিল থেকে ৫শতাধিক ঘর বরাদ্ধ দেওয়ার কথা বলে গত ২ মাস থেকে বিভিন্ন ইউনিয়নের নেতাকর্মী ও ইউপি সদস্যদের মাধ্যমে অর্ধকোটি টাকা আদায় করেন। উপজেলার ৫নং চন্ডিপুর ইউনিয়নের ২ ওয়ার্ড মেম্বার লিয়াকত পাইনের মাধ্যমে ৭জন, চন্ডীপুর গ্রামের মো: তসলিম হোসেনের মাধ্যমে ৫জন, দরবেশপুর ইউনিয়নের মোরশেদের মাধ্যমে ১৫জন, ২নং নোয়াগাও ইউনিয়ন মেম্বার ফরিদের মাধ্যমে ২০ জনসহ ৫ শতাধিত লোকের কাছ থেকে ১০/২০ হাজার টাকা করে অর্ধকোটি টাকা আদায় করে ।
চন্ডিপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য লিয়াকত পাইন জানান, অন্যান্য ওয়ার্ডের মেম্বাররা ঘর দেওয়ার নামে ১৫/২০ হাজার টাকা করে উত্তোলন করেছে। আমি দশ হাজার টাকা করে নিয়ে ফরিদ আহম্মেদ বাঙ্গালীকে দিয়েছি।
চন্ডিপুর ইউপির আওয়ামীলীগ নেতা রেজাউল করিম তসলিম জানান, আমি ও আমার আত্মীয়-স্বজনসহ ৫ জনের প্রত্যেকের ১০ হাজার টাকা করে পঞ্চাশ হাজার টাকা ফরিদ বাঙ্গালীকে দিয়েছি।
এমপি’র ব্যাক্তিগত সহকারী ফরিদ বাঙ্গালী জানান, বরাদ্ধ নিতে অফিসিয়াল কিছু খরচ আছে, ঘর বরাদ্ধ হওয়ার পর ওই টাকা নেওয়া হবে। অগ্রিম কারো কাছ থেকে টাকা নেওয়ার কথাটি সত্য নয়।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ বোরহান উদ্দিন জানান, মন্ত্রনালয় থেকে যাদের জায়গা আছে ঘর নাই এসমস্ত অসহায় লোকদের তালিকা পাঠানোর জন্য চিঠি দিয়েছে। সেই আলোকে ইউপি চেয়ারম্যানদেরকে বলেছি, ৩টি ইউনিয়ন থেকে ৩০ জনের তালিকা দেওয়ার জন্য। কিন্তু ফরিদ বাঙ্গালী টাকা নিয়ে কিসের তালিকা করছে সে ব্যাপারে জানি না।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবু ইউসুব জানান, ফরিদ বাঙ্গালী ৪০৬ জনের একটা তালিকা নিয়ে আমার কাছে সুপারিশের জন্য এসেছেন। কিন্তু টাকার বিনিময়ে ঘর বরাদ্ধের নামে টাকা উত্তোলনের বিষযটি জানতে পেরে ওই তালিকায় আমি কোন স্বাক্ষর করিনি।
এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও তরিকত ফেডারেশন স্থায়ী কমিটির সদস্য লায়ন এম এ আওয়ালের সাথে মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetvnews@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫