[X]

রামগঞ্জে মুখে কাপড় বেঁধে ৬ষ্ট শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষন


লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে জোরপূর্বক মুখে কাপড় বেঁধে আয়েশা ছিদ্দিকা প্রীতি (১৩) নামের নয়নপুর হানাফিয়া মাদ্রাসার ৬ষ্ট শ্রেনীর এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষন করেছে কামাল হোসেন নামের এক টাইস মেস্তুরী। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলা ৪নং ইছাপুর ইউনিয়নের নয়নপুর গ্রামের আঃ করিম বেপারী বাড়িতে। লম্পট কামাল ওই বাড়ির মোঃ ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে ধর্ষিতার মা মারজাহান আক্তার শাহীন প্রীতিকে নিয়ে ডাক্তারী পরীক্ষা নিরিক্ষার জন্য রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে নিয়ে এসেছেন। সৃষ্ট ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার নয়নপুর এলাকার বখাটে কিছুু লোক সু-কৌশলেই বাড়িতে শালিশী বৈঠকের মাধ্যমে মিমাংসা করা হবে বলে থানায় কোন মামলা না করার জন্য চাপ সৃষ্টি অব্যাহত রেখেছে। এমন সংবাদ এলাকার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে ১ সন্তানের পিতা  লম্পট কামাল পলাতক রয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার নয়নপুর গ্রামের আঃ করিম বেপারী বাড়িতে ১৫ আগষ্ট রাতে বাড়ির মিজানুর রহমানের মেয়ে আয়েশা ছিদ্দিকা প্রীতি রাত ১০টায় দাদার ঘর থেকে নিজ ঘরে যাওয়ার সময় পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা লম্পট কামাল প্রীতির মুখে কাপড় বেঁধে জোর পুর্বক টেনে হিচড়ে তার ঘরের ভিতর নিয়ে ইচ্ছামত ধর্ষন করে। এসময় ধর্ষিতা জোর পূর্বক মুখের কাপড় সরিয়ে চিৎকার দিলে বাড়ির লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে। এসময় বাড়ির ও এলাকার লোকজন উপস্থিত হয়ে কামালকে গনধোলাই দিলে স্থানীয় কিছুু বখাটেররা  ঘটনাস্থলে এসে মেয়ের মাকে ৭০ হাজার টাকা দিবে বলে লম্পট কামালকে পালিয়ে যেতে সহযোগীতা করে।
ধর্ষিতার বাবা মোঃ মিজানুর রহমান জানান,  এলাকার কিছু লোকজন বিষয়টি মিমাংসা করে দেওয়ার অশ্বাস দেওয়ার কারনে প্রশাসনের কাউকে কিছু জানানো হয়নি।কিছুু লোকের ভয়ে গোপনে আমার স্ত্রী মেয়েকে নিয়ে হাসপাতালে গেছেন।
রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ তোতা মিয়া জানান, বিষয়টি আমাকে কেউ জানায়নি। শীঘ্রই খোজখবর নিয়ে কামালের বিরুদ্ধে প্রযোজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetv24@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫