মেয়াদ শেষ হ্ওয়া কোন সিলিন্ডার ঘরে রাখা আর বোমা রাখা একই কথা

''মেয়াদ শেষ হ্ওয়া কোন সিলিন্ডার ঘরে রাখা আর  বোমা রাখা একই কথা''
রামগঞ্জে  যত্রতত্রে অবাধে বিক্রি  করা হচ্ছে মেয়ার্ত্তোনসহ গ্যাস সিলিন্ডার

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়াই লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলায়  বিভিন্ন হাট-বাজারের মুদি দোকান , ফোন ফ্যাক্সের দোকান,ষ্টেশনারী দোকান, রড সিমেন্ট দোকানসহ যত্রতত্রে অবাধে বিক্রি  করা হচ্ছে মেয়ার্ত্তোনসহ তরলকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস বা এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার । এ সব গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি ক্ষেত্রে তাদের কাছে কোন বিস্ফোরক অধিদপ্তরের বৈধ কাগজ পত্রাদি নেই, নেই অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রাংশ। অনেক বিক্রিতা গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের যে প্রয়োজন তাও জানেন না। আর এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের তদারকি না থাকায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরন হয়ে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটছে অহরহ।
'' বিস্তারতি পত্রকিায় ‘’
গ্যাস-সিলিন্ডারের মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ জানার উপায় ঃ-
রামগঞ্জে গ্যাস না থাকায় আমরা প্রায় সবাই বাড়িতে  গ্যাস-সিলিন্ডার ব্যাবহার করে থাকি।  অনেক সময় শুনা যায় যে সিলিন্ডার বিস্ফোরন হয়ে অগ্নিকান্ডে ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি ও  মানুষ মারা যাওয়ার ঘটনা। । কিন্তু সিলিন্ডার কেন বিস্ফোরণ হয়  তা অনেকেই জানি না।
সব জিনিসের মত সিলিন্ডারেরও মেয়াদ  উত্তীর্ণ তারিখ থাকে। মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেই বিস্ফোরণের দিকে এগোতে থাকে সিলিন্ডার। মেয়াদ শেষ হ্ওয়া কোন সিলিন্ডার ঘরে রাখা আর ঘরে বোমা রাখা একই কথা।
যেভাবে  জানা যাবে সিলিন্ডার মেয়াদ উত্তীর্ণ তারিখ:
সিলিন্ডেরের গায়ে  এ , বি, সি, ডি =১৬, ১৭, ১৮ সংকেত থাকে।
এ= বছরের প্রথম তিন মাস জানুয়ারী, ফেব্রুয়ারী, মার্চ।
বি= তার পরের তিন মাস এপ্রিল, মে, জুন।
সি = তার পরের তিন মাস জুলাই, আগষ্ট, সেপ্টেম্বর।
ডি= বছরের শেষ তিন মাস অক্টোবর, নভেম্বর, ডিসেম্বর।
আর সবার শেষে বছরের শেষ দুই ডিজিট থাকে, অর্থাৎ যদি ডি ১৮ থাকে তার মানে হল ২০১৮ সালের অক্টোবর, নভেম্বর, ডিসেম্বর মাসেই আপনার সিলিন্ডারের মেয়াদ শেষ।

No comments:

Post a Comment

অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetv24@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫