১৭-ই জুলাই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে “বেনাপোল এক্সপ্রেস’র উদ্বোধন করবেন প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা -------------- রেলওয়ের মহাপরিচালক

শেখ কাজিম উদ্দিন :: বেনাপোল বন্দরের উন্নয়ন ও গতিশীলতার কথা চিন্তা করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর জীবদ্দশায় কয়েকবার বেনাপোলে এসেছিলেন। নকশা এঁকেছিলেন বেনাপোল বন্দরের উন্নয়ন নিয়ে। আজ তাঁরই কণ্যা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বাবার সেই স্বপ্নকে পূরণ করতে নানাভাবে বেনাপোল বন্দরের উন্নয়ন নিয়ে কাজ করছেন। তারই ধারাবাহিকায় সরাসরি ঢাকার সাথে চালু হচ্ছে ঢাকা-বেনাপোল ট্রেন চলাচল। আগামী ১৭-ই জুলাই প্রধান মন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন নিজ পছন্দের নাম করণ দেওয়া “বেনাপোল এক্সপ্রেস” রেল চলাচলের। শনিবার বেলা ১১টার সময় বেনাপোল ট্রেন স্টেশন পরিদর্শন শেষে স্থানীয় রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংবাদিক ও  প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সাথে এক মত বিনিময় সভায় বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক সামছুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে একথা বলেন।

দ্রুতগামী এই ট্রেনটি রাজধানী ঢাকা থেকে ছেড়ে ঈশ্বরদী জংশন ও যশোর হয়ে বেনাপোল স্থলবন্দরে পৌছাবে। এ ট্রেনে বগি থাকবে ১২টি। ৮৯৬ আসনের ট্রেনটি প্রতিদিন বেনাপোল স্টেশন থেকে ছেড়ে যশোর, ঈশ্বরদী জংশন ও ঢাকা বিমানবন্দরে যাত্রী ওঠা-নামা করার জন্য সাময়িক বিরতি দিয়ে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে শেষ হবে। বুধবার(১৭ জুলাই) উদ্বোধনের পর বেলা সোয়া একটায় ট্রেনটি বেনাপোল থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। বেনাপোল থেকে এ ট্রেনের শোভন চেয়ারের টিকিটের দাম ৫’শ টাকা, এসি (শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত) চেয়ার এক হাজার টাকা ও এসি কেবিনের ভাড়া ১হাজার ২’শ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা ভবিষ্যতে বাড়ানো বা কমানো যাবে।

ইন্দোনেশিয়ার পিটি ইনকায় তৈরি এ ট্রেনের কামরাগুলোতে বিমানের মতো বায়ো-টয়লেট সুবিধা রয়েছে। আসনগুলোও অত্যাধুনীক। প্রতিদিন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ট্রেনটি বেনাপোল থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। আবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা থেকে বেনাপোলের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে। প্রতিদিন সকাল ৮টার মধ্যে ট্রেনটি বেনাপোল বন্দরে পৌঁছাবে। ফলে ভারতগামী যাত্রীদের যাতায়াতে বেশ সুবিধা হবে।

তিনি আরো বলেন, ঢাকা-বেনাপোল রেল চালু শুরুর ফলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন আরো সমৃদ্ধিশালী হবে। মানুষ ঢাকা থেকে যানজট মুক্ত পরিবহনে নিরাপদে বেনাপোল আসতে পারবে। ব্যবসা বানিজ্যসহ পাসপোর্ট যাত্রীদের যাতায়াতে এই রেল হবে মাইল ফলক। এছাড়া বেনাপোল রেল ষ্টেশনে তৈরী হবে বঙ্গবন্ধুর ম্যোরাল।

এর আগে তিনি বেনাপোল রেলষ্টেশনে পৌছালে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান যশোর জেলা ও শার্শা উপজেলা প্রশাসনসহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

বেনাপোল রেল স্টেশনের পুলিশ ইমিগ্রেশন রুমে অনুষ্ঠিত মত বিনিময় সভার সভাপতিত্ব করেন বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আলহাজ¦ মফিজুর রহমান স্বজন।


শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহীম খলিলের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত মত বিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন রেলের অতিরিক্ত সচিব প্রনব কুমার ঘোষ, মহাব্যবস্থাপক খন্দকার শহিদুল ইসলাম, প্রধান অডিট অফিসার আব্দুল মান্নান, প্রধান বানিজ্যিক কর্মকর্তা শাহনেওয়াজ প্রধান সংকেত, টেলি প্রকৌশলী অসীম কুমার তালুকদার, প্রধান প্রকৌশলী আফজাল হোসেন, যশোর জেলার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক শওকাত হোসেন, শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সালাউদ্দিন আহম্মেদ প্রমুখ।

আরো উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা  সিরাজুল হক মঞ্জু, সাধারন সম্পদক আলহাজ¦ নুরুজ্জামান, যুগ্ম সম্পাদক আলহাজ¦ সালেহ আহমেদ মিন্টু, বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ¦ এনামুল হক মুকুল, সহ সভাপতি আলীকদর সাগর, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ নাসির উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক মহাতাব উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান ঘেনা, প্রচার সম্পাদক আকবার আলী, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অহিদুজ্জামান অহিদ, সাধারণ সম্পাদক ও শার্শা সদর ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার, বাস্তহারালীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, বেনাপোল পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টু, সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আল ইমরান, আল আমিন রুবেল, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আল মামুন জোয়াদ্দার, সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান প্রমুখ।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

loading...
অফিস ॥ ৯২ আরামবাগ, ক্লাব মার্কেট, মতিঝিল। ই-মেইল ॥ banglaonlinetvnews@gmail.com
প্রকাশক মোঃ রাসেল জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি রেজিঃ নং: ঢ_০৮৮৩৭
অনলাইন নিতীমালা মেনে আবেদন কৃত সম্পাদক॥ রাজু আহমেদ অনুমোদিত নাম্বার ০৫/৯৩১৭০২৬৫